আন্তর্জাতিক

‘দ্যা স্পিন উইজার্ড’, এন্ড অফ এন এরা

0

২১ জুলাই ২০১০। গল ক্রিকেট স্টেডিয়াম।
ভারত বনাম শ্রীলঙ্কার প্রথম টেস্টের চতুর্থ দিনের খেলা চলছে। প্রথম ইনিংসে ফলো অনে পড়ে দ্বিতীয় বারের মতো ব্যাটিং করছে ভারত । সারাবিশ্বের ক্রিকেট অনুরাগীদের নজর শ্রীলঙ্কা দলের বোলিংয়ের ওপর। সেই বোলিং অ্যাটাকের মনি হয়ে জ্বলজ্বল করছেন একজন। মুত্তিয়া মুরালিধরন।

টেস্ট শুরু হবার আগেই কিংবদন্তি স্পিনার মুরালিধরন ঘোষণা দেন এটাই হতে যাচ্ছে তার ক্যারিয়ারে সর্বশেষ টেষ্ট ম্যাচ।

এর চার বছর আগে আরেক কিংবদন্তি বোলার শের্ন ওয়ার্নকে টপকে হয়ে গেছেন টেস্ট ইতিহাসের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী।

শেষ টেস্টের আগের পাঁচ টেস্টে নিয়েছেন মাত্র বাইশ উইকেট , তাতে পাঁচ উইকেট নিতে পারেননি একবারও। ইনিংসে চার উইকেটও মাত্র একবার।

মুরালিও হয়তো বুঝতে পেরেছেন যে, কালে কালে অনেক বেলা হল। এবার বাইশ গজের রণাঙ্গন থেকে বিদায় নেয়ার সময় চলে এসেছে । তাই সিরিজ শুরুর আগেই ঘোষণা দেন টেষ্ট ক্রিকেটকে বিদায় বলার।

দেড়যুগের ক্যারিয়ারে দুই হাত ভরে সাফল্য পেয়েছেন। দুর্দান্ত ক্যারিয়ারে ঈর্ষণীয় পারফরম্যান্সের দরুণ ম্যাচে চার উইকেট ৪৫ বার , পাঁচ উইকেট ৬৭ বার এবং দশ উইকেট ২২ বার শিকার করেছেন । বিদায়ের ঘোষণা দিয়েছেন তখন ৭৯২ উইকেটের মালিক , নিকটবর্তী হিসেবে রয়েছেন অনেক আগে অবসর নেয়া শের্ন ওয়ার্ন ৭০৮ উইকেট নিয়ে ।

ক্রিকেট অনুরাগীদের নজর রাখার অন্যতম কারণ হচ্ছে মুরালির শেষ টেস্ট এবং ক্রিকেট ইতিহাসের প্রথম বোলার হিসেবে টেষ্টে রেকর্ডসংখ্যক ৮০০ উইকেটের মালিক হওয়ার হাতছানির জন্য ।

ম্যাচে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে শ্রীলঙ্কা তাদের প্রথম ইনিংসে ৫২০ রানে ডিক্লেয়ার করে দেয় । জবাবে ২৭৬ রানেই গুটিয়ে যায় ভারতের প্রথম ইনিংস । শচীন , যুবরাজ , ধোনি , ওঝা ও মিথুনকে আউট করে ৬৭বারের মত পাঁচউইকেট তুলে নেন মুরালি ।

ফলোঅনে পড়ে দ্বিতীয়বারের মতো ব্যাটিংয়ে নামে ভারত । শেষ টেস্টটি স্মরণীয় করে রাখতে না রেকর্ড ৮০০ উইকেটের কোটা পূরণ করার জন্যে লংকান অধিনায়ক মুরালিকে বোলিংয়ে সবচেয়ে বেশি প্রাধান্য দেন । একদিক থেকে মুরালি বল করছেন তো ওভার শেষ হলে বাদবাকিরা করছেন ।

কিন্তু মুরালির বোলিংয়ের কোন বিরতিই নেই । ভারতের দ্বিতীয় ইনিংসে ১১৫.৪ ওভারে ৩৩৮রানে অলআউট হয়ে যায় । দ্বিতীয় ইনিংসে হয়তোবা জমজমাট করতে হয়তো ক্রিকেট বিধাতা মুরালির উপর থেকে নজর সরিয়ে নেন । তাইতো কোনভাবেই উইকেটের দেখা পাচ্ছিলেন না । অপর দিকে পেসার মালিঙ্গা একেএকে পাঁচটি উইকেট তুলে নেন । তারপরও বিরতিহীনভাবে বল করেই যাচ্ছেন মুরালি ।

ভারতের যখন নবম উইকেটের পতন হয় তখন পর্যন্ত মুরালি পেয়েছেন যুবরাজ ও হরভজনের দুই উইকেট মাত্র । রেকর্ড ৮০০ উইকেটের ইতিহাস রচনা করতে মাত্র এক উইকেট দূরে রয়েছেন মুরালি । একটা অজানা ভয় তো অবশ্যই ছিল , যদি দশম উইকেট অন্য কেউ নিয়ে নেয় ।

কিন্তু শেষটা রঙিন করে রাখতে ঈশ্বর মুখ তুলে তাকালেন মুরালির দিকে । ১১৫ তম ওভারে বোলিংয়ের জন্য আসেন মুরালি । প্রথম তিনটি বল খুব সাবলীলভাবেই খেলেছেন প্রজ্ঞান ঔঝা । ওভারের চতুর্থ বলেই এক নতুন ইতিহাস রচিত হয় । অফস্টাম্পে করা ডেলিভারিটি পূর্বের ন্যায় রুখতে চান ঔঝা । কিন্তু ব্যাটের কানায় আলতো স্পর্শ করে বলটি চলে যায় উইকেট কিপারের পেছনে ফাস্ট স্লিপের দিকে ।

সেখানে ফিল্ডিংরত জয়াবর্ধনে হালকা হাঁটু গেড়ে বলটি তালুবন্দি করতে সামান্য ভুল করেননি । প্রজ্ঞান ঔঝা আউট এবং সেইসাথে টেষ্ট ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথম বোলার হিসেবে ৮০০ উইকেট নেয়ার কীর্তি রচনা করলেন বিষ্ময় বোলার মুত্তিয়া মুরালিধরন ।

স্যাম/জেটি

You may also like

Comments

Leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *