আরিফুল হক
আরিফুল হক, ফাইল ছবি
বাংলাদেশ

দুর্দান্ত আরিফুলে খুলনার জয়ের হাসি

0

টান টান উত্তেজনায় নিজেদের প্রথম ম্যাচে এক বল হাতে রেখে ফরচুন বরিশালকে চার উইকেটে হারিয়েছে জেমকন খুলনা।১৫৩ রানের টার্গেট তাড়া করে শেষ ওভারে ২৪ রান নিয়ে দলের জন্য জয় ছিনিয়ে আনেন খুলনার আরিফুল হক।

টসে হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে প্রথম বলেই মেহেদি হাসান মিরাজের আউটে শুরুতেই চাপে পড়ে বরিশাল। অধিনায়ক তামিম ইকবাল এবং পারভেজ হোসেন ইমন সেই ধাক্কাটা কিছুটা সামাল দিলেও খুব বেশি বড় হয়নি তাদের জুটি।দলীয় ৩৮ রানে তামিম ফিরে গেলে দলের হাল ধরে ইমন।

৫১ রানের ঝলমলে ইনিংস খেলে ইমন যখন সাজঘরে ফেরত যান তখন বরিশালের দলীয় স্কোর ৮১ রান। ইমনের আউটের পর তৌহিদ হৃদয়ের ২৭, মাহিদুল ইসলাম অঙ্কনের ১০  বলে ২১ এবং তোসকিনের পাঁচ বলে ১২ রানের উপর ভর করে ১৫২ রানের স্কোর দাঁড় করায় বরিশাল।

১৫৩ রানের জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ধাক্কা খায় খুলনা। তাসকিনের আগুনে বোলিংয়ের তোপে প্রথম ওভারেই সাজঘরে ফিরে দুই ওপেনার আনামুল হক বিজয় (৪) এবং ইমরুল কায়েস (০) ।

দুই ওপেনারের বিদায়ের পর দলের হাল ধরার চেষ্টা করেন দুই অভিজ্ঞ খেলোয়াড় মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ এবং সাকিব আল হাসান। তবে তাদের সেই চেষ্টা খুব একটা সফলতার মুখ দেখেনি। দলীয় ৩২ রানে মাহমুদ উল্লাহ (১৭ রান) এবং ৩৬ রানে সাকিব (১৫ রান) আউট হলে আবারো চাপে পড়ে খুলনা।

দলের এমন বিপদের মুহূর্তে হাল ধরে জহিরুল ইসলাম এবং আরিফুল হক। সাবলীয় ব্যাটিংয়ে জহিরুল একপাশ থেকে রানের চাঁকা সচল রাখেন আর অন্য প্রান্ত আগলে খেলতে থাকে আরিফুল। ব্যক্তিগত ৩১ এবং দলীয় ৭৮ রানের জহিরুল আউট হলে আরিফুলকে সঙ্গ দিতে মাঠে নামেন শামীম হোসেন।

দলীয় ১৮তম ওভারে শামীম যখন আউট হন তখনো জয়ের জন্য খুলনার প্রয়োজন ৩১ রান। ১৯ তম ওভার ওভার শেষে সেই সমীকরণ দাঁড়ায় ৬ বলে ২২ রান যা সেই সময়ে অসম্ভবই মনে হচ্ছিল। আর ঠিক তখনই ত্রাতার ভূমিকায় অবতীর্ণ হন পুরো ইনিংস জুড়ে ধীর গতিতে ব্যাট করতে থাকা আরিফুল।

শেষ ওভারে মেহেদি হাসানের মিরাজের প্রথম দুই বলে টানা দুই ছয় মেরে ম্যাচটিতে প্রাণ ফিরিয়ে আনেন এই ব্যাটসম্যান। তৃতীয় বলে কোনো রা্ন না হলেও তৃতীয় এবং চতুর্থ বলে আরাবো দুই ছয় মেরে দলকে বিজয়ের সীমানায় পৌছে দেন তিনি।আর এই জয়ে বঙ্গবন্ধু টি টোয়েন্টি কাপে শুভ সূচনা করে জেমকন খুলনা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:
ফরচুন বরিশাল: ১৫২/৯ (ইমন ৫১, শহিদুল ইসলাম ১৭/৪)
জেমকন খুলনা: ১৫৫/৬ (আরিফুল ৪৮, সুমন খান ২১/২)

You may also like

Comments

Leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *