আন্তর্জাতিক

ক্রিকেটকে বিদায় জানালেন ধোনি

1

‘নিরন্তর ভালোবাসা ও সমর্থনের জন্য সবাইকে অনেক ধন্যবাদ। আজ (শনিবার) সন্ধ্যা ৭টা ২৯ মিনিট (বাংলাদেশ সময় ৭টা ৫৯ মিনিট) থেকে আমাকে সাবেক খেলোয়াড় হিসেবে গণ্য করবেন’- দুই লাইনের এই ছোট্ট বার্তায় নিজের বর্ণাঢ্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ক্যারিয়ারের ইতি টানলেন ইতিহাসের অন্যতম সফল অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি।

গতবছরের বিশ্বকাপের পর থেকেই মূলত অপেক্ষা ছিলো কবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটকে বিদায় জানাবেন ধোনি। তবে তিনি নিজে প্রাথমিকভাবে জানিয়েছিলেন, এখনও ইচ্ছে রয়েছে ভারতের হয়ে খেলার। কিন্তু সেই সুযোগ আর নিলেন না। সবশেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলার প্রায় ১৩ মাস পর অবসরের সিদ্ধান্ত জানালেন ভারতের ইতিহাসের সফলতম এই অধিনায়ক।

২৩ বছর বয়সে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট শুরু করে বিদায় জানালেন ৩৯ বছর পার করে। ২০০৪ সালের ২৩ ডিসেম্বর বাংলাদেশের বিপক্ষে শুরু হয়েছিল ধোনির যাত্রা আর শেষ ম্যাচটা খেলেছেন ২০১৯ সালের ৯ জুলাই তারিখে। মাঝের ১৫ বছরে তিন ফরম্যাট মিলে খেলেছেন ৫৩৮টি ম্যাচ, করেছেন ১৭ হাজারের বেশি রান।

নিজের নামের আগে সাবেক শব্দটি যোগ করতে বললেও, আগামী মাসের ১৯ তারিখ থেকে শুরু হতে যাওয়া আইপিএলে খেলার জোর সম্ভাবনা রয়েছে ধোনির। শনিবার চেন্নাই সুপার কিংসের হয়ে অনুশীলন করতেও দেখা গেছে তাকে। এ বিষয়ে নিশ্চিত তথ্য জানা যায়নি এখনও, তবে আইপিএল খেলার জন্য আরব আমিরাত যাবেন ধোনি- এমনটাই জানাচ্ছে ভারতের সংবাদমাধ্যমগুলো।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এমন কোনো সাফল্য নেই যা ভারতের হয়ে জেতেননি ধোনি। ২০০৭ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ দিয়ে শুরু। একে একে ওয়ানডে বিশ্বকাপ ২০১১, আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফি ২০১৩, আইসিসি টেস্ট র‍্যাংকিংয়ের শীর্ষস্থান- সব শ্রেষ্ঠত্বই ভারতকে এনে দিয়েছেন ঝাড়খণ্ডে বেড়ে ওঠা এ ক্রিকেটার।

২০২০ সালে এসে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ছাড়লেও, টেস্ট ক্রিকেটকে তিনি বিদায় জানিয়েছেন ২০১৪ সালের মেলবোর্ন টেস্টের পরই। আর ২০১৭ সালের জানুয়ারি মাসে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টির অধিনায়কত্ব ছেড়ে দিয়েছেন বিরাট কোহলির হাতে। এরপর থেকে সাধারণ সদস্য হিসেবেই আরও আড়াই বছর রঙিন পোশাকের ক্রিকেটে খেলেছেন ধোনি।

তার অধিনায়কত্বের প্রশংসায় প্রায়ই আড়াল হয়ে যায় ব্যাটিং পারফরম্যান্স। ২০১৯ বিশ্বকাপে ধোনির শেষ ম্যাচটি ছিল তার ৩৫০তম ওয়ানডে ম্যাচ। সেই ম্যাচে ৭২ বলে ৫০ রানের ইনিংস খেলে রানআউট হন ধোনি। কাকতালীয় বিষয় হলো ২০০৪ সালে বাংলাদেশের বিপক্ষে নিজের অভিষেক ম্যাচেও রানআউট হয়েছিলেন দৌড়ে রান নেয়ার জন্য বিখ্যাত এ ব্যাটসম্যান।

ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ৩৫০ ম্যাচে ভারতের পঞ্চম ব্যাটসম্যান হিসেবে ১০ হাজার রানের ক্লাবে প্রবেশ করেছেন ধোনি, ৫০.৫৭ গড়ে করেছেন ১০৭৭৩ রান। ক্রিকেটের এই ফরম্যাটে ৭৩ হাফসেঞ্চুরির পাশাপাশি করেছেন ১০টি সেঞ্চুরিও। শেষ ম্যাচের সময় ওয়ানডেতে ধোনির ছক্কা ছিল ২২৯টি। যা ছিল ভারতীয়দের মধ্যে সর্বোচ্চ। পরে এ রেকর্ড নিজের করে নিয়েছেন রোহিত শর্মা (বর্তমানে ২৪৪ ছক্কা)।

টেস্ট ও টি-টোয়েন্টিতে ম্যাচসংখ্যায় সেঞ্চুরি করতে পারেননি ধোনি। ৯০ টেস্টে ৬ সেঞ্চুরি ও ৩৩ ফিফটিতে করেছেন ৪৮৭৬ রান এবং ৯৮ টি-টোয়েন্টিতে ৩৭ গড়ে তার সংগ্রহ ১৬১৭ রান। উইকেটরক্ষক হিসেবে ইতিহাসের তৃতীয় সর্বোচ্চ ৮২৯ ডিসমিসাল নিয়ে ক্যারিয়ার শেষ করলেন ধোনি।

You may also like

1 Comment

  1. […] সম্ভাবনা বাস্তবায়ন হতে দেননি ধোনি। শনিবার সন্ধ্যায় জানিয়েছেন অবসরের সিদ…, নিজের নামের আগে বসাতে বলেছেন সাবেক […]

Leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *